রাজধানীতে জালনোট চক্রের তৎপরতা

আমাদের সামনে যখনই জাতীয় উৎসব কিংবা অন্যান্য ধর্মীয় উপলক্ষ্য আসে তখনই প্রতি বছরের মতো জালনোট চক্রের সদস্যরা সক্রিয় হয়ে উঠে। শনিবার রাতে রাজধানীর শেরে বাংলা নগরের একটি বাসা থেকে ৪০ লাখ জাল টাকা ও জাল টাকা তৈরির সরঞ্জামসহ ছয়জনকে গ্রেপ্তার করেছে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ। এদের একজন হাওলাদার সোহেল জালনোট চক্রের মূল হোতা হিসেবে চিহ্নিত। তিনি এর আগে একাধিকবার ডিবি পুলিশের হাতে গ্রেপ্তার হলেও জামিনে বের হয়ে এসে আবারও জাল টাকা তৈরির ব্যবসায় জড়িয়ে পড়েন।
দেশের অর্থনীতির জন্য প্রত্যক্ষ হুমকি হিসেবে বিবেচিত হওয়ার পরও জালনোট চক্রের সদস্যদের সামাল দেওয়া যাচ্ছে না গ্রেফতারের পর আইনের ফাঁক গলিয়ে বের হয়ে যাওয়ার কারণে। ছাড়া পেয়ে আবারও তারা নিয়োজিত হচ্ছেন জালনোটের ব্যবসায়। জালনোট চক্রের সদস্যদের বিরুদ্ধে ১৯৭৪ সালের বিশেষ ক্ষমতা আইনে মামলা করা হয়। কিন্তু মামলার দুর্বলতায় প্রতারক চক্রের সদস্যরা সহজেই জামিন পেয়ে যান। পুলিশ এ ব্যাপারে যাদের সাক্ষী করে প্রায়ই তাদের খোঁজ পাওয়া যায় না। ফলে মামলার নিষ্পত্তি অসম্ভব হয়ে পড়ে। জালনোট ব্যবসায়ীদের আর্থিক সামর্থ্যের কারণে তাদের জামিন দেওয়ার জন্য আইনি তৎপরতা চালাতে আইনজীবীদের কেউ কেউ মুখিয়ে থাকেন। বেশিরভাগ ক্ষেত্রে উচ্চ আদালতে তারা জামিন পান আইনের ফাঁক গলিয়ে। জালনোট প্রতিরোধে ২০১১ সালের নভেম্বরে বাংলাদেশ ব্যাংক এ অপরাধের সঙ্গে জড়িতদের কঠোর শাস্তি নিশ্চিত করতে আইন মন্ত্রণালয়ে বেশ কিছু সুপারিশ পাঠায়। এতে জাল মুদ্রা তৈরির সরঞ্জাম বা বড় চালানসহ গ্রেপ্তার হওয়া ব্যক্তিদের জামিন অযোগ্য হিসেবে বিবেচনা করা এবং দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালে বিচারের সুপারিশ করা হয়েছিল। এ ছাড়া জালনোট ব্যবসায় জড়িতদের ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমেও শাস্তি দেওয়ার প্রস্তাব ছিল। আমাদের বিশ্বাস, এ সুপারিশ কার্যকর হলে জালনোটের দৌরাত্ম্য কিছুটা হলেও হ্রাস পাবে। স্মর্তব্য, জালনোট ব্যবসার সঙ্গে জড়িতদের বিরুদ্ধে ১৯৭৪ সালের বিশেষ ক্ষমতা আইনে মৃত্যুদন্ডের বিধান ছিল। ১৯৮৭ সালে এরশাদ শাসনামলে সে বিধান রহিত করে যাবজ্জীবন কারাদ- করা হয়। মৃত্যুদন্ডের পুনঃপ্রবর্তন না হোক, এ অপরাধের সঙ্গে জড়িতদের জামিন অযোগ্য করে যাবজ্জীবন কারাদন্ড, সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত ও আর্থিক জরিমানা সংবলিত নতুন আইন প্রণয়ন করা হবে, আমরা এমনটিই দেখতে চাই। জালনোটের দৌরাত্ম্য অপরাধ দমনে দরকার কড়া আইন।

Please follow and like us:
0

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *