মহাকাশচারীদের নিজেদের মলমূত্র থেকেই খাবার

মঙ্গল গ্রহে ২০৩০ সাল নাগাদ মহাকাশচারী পাঠানোর চিন্তা করছে মার্কিন মহাকাশ গবেষণা সংস্থা নাসা। তবে সেই অভিযান হবে বেশ সময়সাপেক্ষ। সেজন্যই সংস্থাটির বিজ্ঞানীদের মধ্যে প্রশ্ন জেগেছে, এতদিনের অভিযান হলে মহাকাশচারীরা খাবেন কী? এর জন্যই সহজ একটি সমাধানও বের করেছেন তারা। আর তা হলো মহাকাশচারীদের নিজেদের মলমূত্র থেকেই খাবার তৈরি করা।

বিজ্ঞানীরা বলছেন, মানুষের মলমূত্র ও নিঃশ্বাস থেকে নির্গত কার্বন ডাই অক্সাইড নিয়ে তৈরি করা যেতে পারে এক ধরনের সিনথেটিক ফুড। এটি নষ্ট হওয়ার কোনও সম্ভাবনা নেই। ইতোমধ্যেই এ নিয়ে গবেষণার জন্য তারা দুই লাখ মার্কিন ডলার বরাদ্দ পেয়েছেন।

যুক্তরাষ্ট্রের ক্লেমসন বিশ্ববিদ্যালয়ের কেমিক্যাল ও বায়োইঞ্জিনিয়রিং বিভাগের অধ্যাপক মার্ক ব্লেনার জানান, শুধু মঙ্গল নয় অন্য মহাকাশ অভিযানগুলোতেও এই খাদ্য ব্যবহার করা যেতে পারে। কারণ মহাকাশ অভিযানে মহাকাশচারীদের বহুদিন কাটাতে হয়। তাই বাড়ি থেকে তৈরি করা খাবার নিয়ে যাওয়া যায় না। ফলমূলেও কাজ হয় না। তাই আমাদের ভাবনা ছিল কী করে সিনথেটিক খাবার তৈরি করা যায়। দেখা গেছে ইস্ট তৈরি করতে পারলে তবেই তা অনেকদিন থাকতে পারে এবং মহাকাশচারীদের জন্য তা খাবার উপযোগী হয়ে উঠবে। কিন্তু তা তৈরি করতে লাগবে মানুষের মলমূত্র ও নিঃশ্বাসের মাধ্যমে নির্গত কার্বন ডাই অক্সাইড। আর এই খাদ্যের ফলে হৃদরোগের সম্ভাবনাও কমবে।

জানা গেছে, এই ইস্ট তৈরির জন্য মূলত নাইট্রোজেন প্রয়োজন। এটি নির্গত হয় মানুষের মলমূত্র থেকে। এ ছাড়াও দরকার লিপিড। এটি তৈরি হয় কার্বন থেকে। ব্লেনারের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, ওই ইস্ট তৈরি হবে লিপিড ও নাইট্রোজেন থেকে। পরে সেটাই প্লাস্টিক ও ওমেগা থ্রিএসে (ফ্যাটি অ্যাসিড) পরিণত হবে। মলমূত্র ও কার্বন ডাই অক্সাইডের এই খাবার তৈরির জন্য নাসার পক্ষ থেকে ব্লেনারকে তিন বছর সময় দেওয়া হয়েছে। সূত্র : এনডিটিভি

 

Please follow and like us:
0