বিশেষ খাবারে দূর হবে মানসিক চাপ

ঢাকা: ‘মানসিক চাপ’ থেকে আসে মানসিক অসুস্থতা। চাপের মাত্রা বেড়ে গেলে নানা ধরণের রোগে আক্রান্ত হওয়া, এমনকি চূড়ান্ত পর্যায়ে আত্মহত্যার ঘটনাও ঘটতে পারে। তাই নানা কাজের মাধ্যমে এই চাপ দূর করার চেষ্টা করতে হবে। কিছু খাবার রয়েছে যা চাপ দূর করতে খুবই কার্যকরী। এ সব খাবার নিয়মিত খাদ্যতালিকায় রাখতে পারলে মানসিক চাপ কমে। সম্প্রতি পিপলস ডেইলি পত্রিকার স্বাস্থ্য চ্যানেলে এক প্রতিবেদনে এমন কিছু খাবারের নাম উল্লেখ করা হয়েছে। যেমন-

কাজুবাদাম

কাজুবাদাম গুরুত্বপূর্ণ পুষ্টি উপাদান। যাতে রয়েছে পর্যাপ্ত পরিমাণ জিংক বা দস্তা। প্রাকৃতিক দস্তা বিষণ্ণতা দূর করতে খুবই কার্যকরী। শরীরে দস্তার চাহিদা পূরণ করতে নিয়মিত কাজুবাদাম খাওয়ার অভ্যাস গড়ে তুলুন, যাতে ধীরে ধীরে মানসিক চাপ মোকাবিলা করা যায়। তাছাড়া ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখতেও কাজুবাদাম যথেষ্ট উপকারী।

ডার্ক চকলেট

ডার্ক চকলেট মানসিক চাপ কমাতে সাহায্য করে। ডার্ক চকলেটে থাকা পলিফেনল মানুষকে স্থির রাখে। তাকে কোনো পরিস্থিতিতেই উত্তেজিত হতে দেয় না। ডার্ক চকলেট তৈরির উপাদানগুলো স্বাস্থ্যের অন্যান্য দিকের জন্যও উপকারী। বিশেষজ্ঞদের মতে, প্রতিদিন এক টুকরো ডার্ক চকলেট খেলে হৃদরোগ বিশেষজ্ঞের কাছে আর যেতে হবে না।

মাছের তেল

মাছের তেলে রয়েছে ওমেগা থ্রি ফ্যাটি এসিড। এই ওমেগা থ্রি ফ্যাটি এসিড শরীরের সুস্থতার পাশাপাশি আমাদের বিষণ্ণতা ও দুশ্চিন্তা দূর করে দেয় এবং মানসিক সুস্থতা রক্ষা করে। তাছাড়া, ওমেগা-থ্রি ফ্যাটি অ্যাসিডযুক্ত খাবার খেলে রাতে ভালো ঘুম হয়।

আখরোট

আখরোটের নানা পুষ্টি উপাদানের মধ্যে আছে আলফা-লিনোলেনিক অ্যাসিড, ওমেগা-থ্রি ফ্যাটি অ্যাসিডসহ অন্যান্য উপাদান। এসব উপাদান মস্তিষ্কের চিন্তা ক্ষমতাকে বাড়িয়ে দেয়। ফলে নিয়মিত কিছুটা আখরোট খেতে পারলে আপনার চিন্তা ক্ষমতা বাড়বে আর তা মানসিক চাপ কমাতে সাহায্য করবে।

ভিটামিন-সি জাতীয় ফল

ভিটামিন-সি সমৃদ্ধ কমলার অনেক উপকারের কথা, সবারই জানার কথা। মনের বিষণ্ণতা কাটাতে কিছুটা কমলার রস খান, সঙ্গে সঙ্গে বিষণ্ণতা শিথিল হয়ে যাবে। নিয়মিত অল্প কমলা খালে শরীর ও মনের স্থিরতা বজায় থাকবে। পাশাপাশি শরীরে কোলেস্টরলের মাত্রা, হৃদরোগের ঝুঁকি এবং কিডনি ভালো রাখার জন্যওকমলা উপকারী।

গ্রিন টি

গ্রিন টি-তে রয়েছে প্রচুর অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট, যা আমাদের শরীরের পাশাপাশি মানসিক স্বাস্থ্য রক্ষা করতে সহায়তা করে। গ্রিন টি পানের ফলে দূর হয় বিষণ্ণতা এবং মস্তিষ্ক আরামদায়ক হয়।

রসুন

রসুনের অনেক গুণ। রসুনের শক্তিশালী অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে খুবই সহায়ক। নিয়মিত রসুন খাওয়া শরীরের জন্য অনেক উপকারী হবে। নিয়মিত রসুন খেলে আপনার রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে থাকা সম্ভব হবে। মানসিক চাপে থাকা মানুষদের জন্য উচ্চ রক্তচাপের ঝুঁকি আরও বেশি। তাই খাবারের সঙ্গে সঙ্গে কিছুটা রসুন খান, যাতে শারীরিক ও মানসিক সুস্থতা রক্ষা করা যায়।

Please follow and like us:
0

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *