বগুড়ায় হাসপাতালে অবিরাম কর্মবিরতি

বগুড়ার শেরপুর উপজেলা হাসপাতালে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের হামলার ঘটনায় অভিযুক্তরা গ্রেফতার না হওয়া পর্যন্ত অবিরাম কর্মবিরতি শুরু করেছেন চিকিৎসক, কর্মকর্তা-কর্মচারীরা। প্রয়োজনে জরুরি বিভাগসহ আন্তঃবিভাগের চিকিৎসাসেবা কার্যক্রম বন্ধ করে দেয়ার ঘোষণা দিয়েছে তারা। বর্তমানে জরুরি বিভাগ ছাড়া সব বিভাগের চিকিৎসা সেবা বন্ধ রয়েছে। হাসপাতালে হামলার ঘটনায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক নূরে আলম সানি (২০) ও তার বাবা সাজু মিয়া (৪৮) ছাড়াও অজ্ঞাত কয়েক জনকে আসামি করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার মধ্যরাতে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ মোখলেছুর রহমান বাদি হয়ে শেরপুর থানায় এ মামলা দায়ের করেন। শেরপুর থানার ইন্সপেক্টর (তদন্ত) মিজানুর রহমান জানান, অভিযুক্তদের গ্রেফতার চেষ্টা চলছে। এছাড়াও হাসপাতালের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে সেখানে পুলিশ মোতায়েন রয়েছে। এদিকে হামলার প্রতিবাদ ও গ্রেফতারের দাবিতে বৃহস্পতিবার সকাল থেকে হাসপাতালে কর্মরত চিকিৎসক, কর্মকর্তা-কর্মচারীরা আন্দোলনে নামেন। ওইদিন সন্ধ্যা পর্যন্ত টানা কর্মবিরতি পালন করেন তারা । ফলে হাসপাতালের চিকিৎসাসেবা কার্যক্রম ভেঙে পড়েছে। উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. মোখলেছুর রহমান জানান, উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের পরামর্শে ঘটনায় জড়িতদের আসামি করে মামলা দায়ের করা হয়েছে। কিন্তু পুলিশ এখনও আসামিদের গ্রেফতার করেনি। এ অবস্থায় তিনিসহ হাসপাতালের চিকিৎসক, কর্মকর্তা-কর্মচারীরা নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন। তাই আসামিরা গ্রেফতার না হওয়া পর্যন্ত তাদের আন্দোলন চলবে। উল্লেখ্য, রোগীদের খাবার সরবরাহের ঠিকাদারি কাজ না পেয়ে গত বুধবার দুপুরে উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক নূরে আলম সানীর নেতৃত্বে একদল নেতাকর্মী হাসপাতালে হামলা চালায়। এসময় হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসক ডা. মামুনুর রশীদ ও হিসাবরণ কর্মকর্তা রফিকুল ইসলামকে মারপিট করে আহত করা হয়।

Please follow and like us:
0