প্রথমবারের মতো নারীসেনা নেবে বিজিবি

ঢাকা : বাংলাদেশের সীমান্তরক্ষী বাহিনী বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) প্রথমবারের মতো নারী সদস্য নিয়োগ দিতে যাচ্ছে।

বিজিবির মহাপরিচালক মেজর জেনারেল আজিজ আহমেদ সোমবার গণমাধ্যমকে এ তথ্য জানান।

প্রাথমিকভাবে ৫০ জন চিকিৎসা সহকারী নিয়োগ দেয়া হলেও পরবর্তীতে তাদেরকে দাফতরিক দায়িত্ব দেয়া হবে এবং ভবিষ্যতে সীমান্ত রক্ষার কাজেও প্রেরণ করা হবে।

বিজিবি কর্মকর্তারা জানান, ৮৮তম প্রশিক্ষণ ব্যাচে নারী ও পুরুষ নিয়োগের জন্য ইতিমধ্যে বিভিন্ন দৈনিক পত্রিকায় বিজ্ঞাপন দেয়া হয়েছে।

আজিজ আহমেদ জানান, বর্তমানে বিজিবির ২ টি হাসপাতাল রয়েছে এবং ভবিষ্যতে এর সংখ্যা আরও বাড়ানো হবে। তাই তাদেরকে প্রাথমিকভাবে চিকিৎসা সহকারী হিসেবে নিয়োগ দেয়া হবে।

বিজিবির রেকর্ড শাখার আরেক কর্মকর্তা জানান, সফলভাবে প্রশিক্ষণ শেষ করার পর নারী সদস্যদেরকে তাদের পুরুষ সহকর্মীদের সঙ্গে সীমান্তে প্রেরণ করা হবে।

নারী সদস্য নিয়োগের প্রয়োজনীয়তা সম্পর্কে তিনি বলেন, অনেক সময় বিজিবি নারী অপরাধীদের গ্রেফতার করে এবং শিশুদের উদ্ধার করে। এসব কাজে নারী সদস্য দরকার হয়।

২০০৯ সাল থেকে ২০১৫ সালের ৩১ আগস্ট পর্যন্ত সীমান্ত এলাকা থেকে বিজিবি ২,৩৮১ জন নারী ও ১,৪১৮ টি শিশুকে উদ্ধার করেছে।

অপরাধীরা অনেক সময় তাদের অপরাধ কর্মকা-ে নারীদের ব্যবহার করে। তাদেরকে গ্রেফতার এবং তল্লাশীতে বিজিবির পুরুষ সদস্যরা অনেক সময়ই ইতস্তত বোধ করে।

বাহিনীটিতে কোনও নারী সদস্য না থাকায় সেনাবাহিনী থেকে নারী ডাক্তারদের এখানে ডেপুটেশনে নিয়োগ দেয়া হয়।

ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনী বিএসএফ ইতিমধ্যে তাদের সীমান্তে নারী সদস্য নিয়োগ দিয়েছে।

৭ এর দশকের মাঝামাঝি থেকে বাংলাদেশ পুলিশ ও সেনাবাহিনীতে নারী সদস্য নিয়োগ দিতে শুরু করে।

Please follow and like us:
0

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *