আগামী নির্বাচন সম্পর্কে ভবিষ্যদ্বাণী সম্ভব নয়: এরশাদ

জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান এইচ এম এরশাদ চট্টগ্রামে রেডিসন ব্লু হোটেল সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময় করেন। ছবি: জুয়েল শীলআগামী সংসদ নির্বাচনে জাতীয় পার্টি ৩০০ আসনে প্রার্থী দেবে বলে জানিয়েছেন দলটির চেয়ারম্যান এইচ এম এরশাদ। তিনি বলেন, ‘আমাদের ৩০০ প্রার্থী আছে। তবে কতজন জয়ী হতে পারবে, সেটা নিশ্চিত নই। সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন হলে আমরা ভালো করব। আগামী দিনে কী হবে, কীভাবে নির্বাচন হবে—সে সম্পর্কে ভবিষ্যদ্বাণী করা সম্ভব নয়।’

আজ বুধবার বিকেলে চট্টগ্রামে হোটেল রেডিসন ব্লুর লবিতে সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময় অনুষ্ঠানে এরশাদ এসব কথা বলেন।

আগামী নির্বাচনে জোট হবে কি না, এই প্রশ্নের জবাবে এরশাদ বলেন, ‘আমরা আপাতত আওয়ামী লীগের সঙ্গে জোটে আছি। আওয়ামী লীগ আমাদের চেয়ে অনেক বেশি শক্তিশালী দল। ভবিষ্যতে কী হবে, কীভাবে নির্বাচন হবে—সে সম্পর্কে ভবিষ্যদ্বাণী করা আমার পক্ষে সম্ভব নয়।’

অপর এক প্রশ্নের জবাবে প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ দূত এরশাদ বলেন, আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জাতীয় পার্টি ৩০০ আসনে প্রার্থী দেবে। তিনি বলেন, ‘আমরা সংগঠিত হচ্ছি। আমাদের ৩০০ প্রার্থী আছে। তবে কতজন প্রার্থী জয়ী হতে পারবে সে সম্পর্কে আমরা নিশ্চিত নই। কিন্তু আমাদের কর্মীদের মধ্যে উৎসাহ সৃষ্টি হয়েছে। আমার মনে হয় সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন হলে আমরা ভালো করব।’

জাতীয় পার্টির সঙ্গে জোটের বিষয়ে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের সম্প্রতি একটি বক্তব্য প্রসঙ্গে জানতে চাওয়া হলে এরশাদ বলেন, ‘ফখরুল ইসলাম কী বলেছেন তা আমার ধারণা নেই। তবে আমরা এককভাবে নির্বাচনের প্রস্তুতি নিয়ে এগিয়ে যাচ্ছি। তবে জাতীয় পার্টি নির্বাচনে ফ্যাক্টর হয়ে দাঁড়িয়েছে। তাই সবাই আমাদের চাচ্ছে। কিন্তু আমরা কোথায় যাব, কীভাবে নির্বাচন করব, সেটা ডিপেন্ড (নির্ভর) করবে আমাদের ওপর, আমাদের কর্মীদের ওপর, নেতাদের ওপর। আমরাই সিদ্ধান্ত নেব, কীভাবে নির্বাচন করব।’

দেশে বিনিয়োগ ও কর্মসংস্থানের অভাব রয়েছে, এমন প্রশ্নের জবাবে এরশাদ বলেন, ‘যুবকদের কর্মসংস্থান নেই, দেশে বিনিয়োগ নেই। তাই এই যুবসমাজ বিপথে চলে যাচ্ছে। অনেকে মাদকাসক্ত হয়ে পড়ছে। এটা আমাদের জন্য সুখকর নয়। জাতির জন্য লজ্জাজনক কথা। সরকারের প্রয়োজন বিদেশি বিনিয়োগ নিয়ে আসা, শিল্প-কারখানা গড়ে তোলা। শিক্ষিত যুবকদের কর্মসংস্থান সৃষ্টি করতে না পারলে সমাজে যে অশান্তি সৃষ্টি হয়েছে তা আরও বাড়বে।’

রংপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনের ফলাফলে সন্তোষ প্রকাশ করে এরশাদ বলেন, ‘নির্বাচন কমিশনের জন্য এই (রংপুর সিটি) নির্বাচন বড় পরীক্ষা ছিল। সেই পরীক্ষায় নির্বাচন কমিশন উত্তীর্ণ হয়েছে। রংপুরে আদর্শ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন হয়েছে। আমার মনে হয়, বাংলাদেশে প্রথমবারের মতো একটি সুষ্ঠু নির্বাচন হলো।’ আগামী জাতীয় নির্বাচনে নির্বাচন কমিশন এই ধারাবাহিকতা ধরে রাখতে পারবে কি না, এ প্রশ্নের জবাবে এরশাদ বলেন, ‘জাতীয় নির্বাচন নিয়ে এই মুহূর্তে কথা বলা উচিত হবে না। তবে আমাদের প্রস্তুতি আছে।’

এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন জাতীয় পার্টির সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ও সাংসদ জিয়াউদ্দিন আহমেদ বাবলু, সাংসদ মাহজাবীন মোরশেদ, ভাইস চেয়ারম্যান মোরশেদ মুরাদ ইব্রাহিম, সাবেক মেয়র মাহমুদুল ইসলাম চৌধুরী, সাবেক সাংসদ সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী প্রমুখ

Please follow and like us:
0